আপনি যদি UX ডিজাইনার হয়ে থাকেন তাহলে এই ১০টি টুলস এখনি দেখুন!

প্রকাশিতঃ ১৫ অক্টোবর, ২০১৭, দেখা হয়েছেঃ ৪,৩২৯ বার

গ্রাফিক ডিজাইন শেখার পর অনেকে অনেক ধরণের কাজে ফোকাসড হয়ে যায়। ধীরে ধীরে এডভান্স ডিজাইন যেমন UX/UI ডিজাইনে ফোকাসড হয়ে যায় অনেক ডিজাইনারই। যারা আমাদের লোগো ডিজাইন ডিভিডি দেখেছেন আশা করা যায় UX/UI নিয়ে চমৎকার সব টিপস এবং ট্রিকস জানতে পেরেছেন।

এবার এই পোস্টে আমরা জানবো UX ডিজাইনারদের কাজে লাগে এমন কিছু সেরা সেরা টুলস। আমরা সবাই জানি UX ডেভেলপারদের বেশ কয়েকটি স্টেপ পার করে ডিজাইন করতে হয়। যেমনঃ

  • রিসার্স করা
  • ডিজাইন স্ট্র্যাটিজি তৈরি করা
  • প্লেসমেন্ট এবং লে আউট ডিজাইন
  • ওয়্যারফ্রেমিং এবং প্রোটোটাইপিং
  • ইউজাবিলিটি টেস্টিং
  • ফাইনাল প্রজেক্ট

এত এত ধাপগুলো পার করার জন্য একজন ফ্রিল্যান্স UX ডেভেলপারকে শুধু একা একা সবগুলো করতে হয় তাই নয় সাথে সাথে ক্লায়েন্টদের ম্যানেজ করা, প্রজেক্ট অরগানাইজড করা এবং UX এর নতুন নতুন ট্রেন্ড সম্পর্কে আপডেটেড থাকা সহ অনেক কিছুই করতে হয়!

সৌভাগ্যক্রমে বেশ কিছু টুলস রয়েছে যা ব্যবহার করে এই কাজগুলো যেমন, ইউজার টেস্টিং, ইউজার সার্ভে, UX অ্যানালাইটিকস, ওয়্যারফ্রেমিং, প্রোটোটাইপিং, টাইম ম্যানেজম্যান্ট, একাউন্টিং, প্রোপজাল তৈরি করা সহ অনেক কিছুই করা যায়! এই টুলসগুলো ব্যবহার করার ফলে আপনার সময় যেমন বাঁচবে তেমনি আপনি আপনার প্রধান কাজ ‘ইউজার এক্সপেরিয়েন্স ডিজাইন’ এ ফোকাসড হতে পারবেন।

০১. Harvest

নতুন ফ্রিল্যান্সারদের জন্য টাইম ম্যানেজ করা হলো অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। হয়তো অনেক প্রজেক্টে যুক্ত হয়ে যায় কিংবা কম প্রজেক্টে! এই হারভেস্ট টুল দিয়ে ঘন্টা হিসাব ট্র্যাক রাখা এমনকি কেউ যদি আপনার সাথে কাজ করে সেটাও ট্র্যাক করে রাখতে পারে। অর্থাৎ এই টুলের প্রধান কাজ হলো আপনার সময় ট্র্যাক রাখা এবং রিপোর্ট চেক করা।

এই রিপোর্টিং টুল আপনার প্রজেক্টের টাইম এবং বাজেট হিসাব রাখবে সাথে সাথে আপনার আপকামিং প্রজেক্টের জন্যেওই অনেক ধরণের আনুমানিক হিসাবে দিবে! Asana অথবা Quickbooks এর সাথেও এই হারভেস্ট টুল ইন্টিগ্রেড করা সম্ভব।

০২. Zipbooks

জিপবুক হচ্ছে ফ্রিল্যান্সারদের জন্য ক্লাসিক একটি একাউন্টিং টুল। এটা আপনার টাইম ট্র্যাক করবে, ইনভয়েস তৈরি করে দিবে, পেমেন্ট মনিটর করবে এবং ওভার টাইম কাজ করলে সেটার মূল্যও নির্ধারণ করে দিবে! জিপবুক হচ্ছে আপনার একাউন্ট চেক করার জন্য অন্যতম একটি টুল। এই টুলে লেট পেমেন্ট রিমাইন্ডার সেট করে রাখা যাবে এবং সেটা ক্লায়েন্টের কাছে অটোমেটিক চলে যাবে।

চমৎকার ক্যাচি ইউজার ইন্টারফেসে খুব সহজেই সব তথ্য দেখা যাবে।

 

০৩. Proposify

আপনার ক্লায়েন্টকে প্রোপোজাল দিয়ে যদি ইম্প্রেস করতে চান তাহলে টুলটি আপনার জন্যই। এই টুলসে যে টেমপ্লেটগুলো দেয়া আছে সেগুলো কাস্টমাইজ করে অনলাইন সাইন আপ ফিচার সহ অনেক কিছুই করতে পারবেন। আগের ব্যবহার করা টেম্পলেটগুলো ভবিষ্যত ব্যবহার করার জন্য সেভ করে রাখতে পারবেন।

০৪. Typeform

এই টাইপফর্ম টুলটি দিয়ে খুব সহজেই ইউজার সার্ভে করতে পারবেন যেখানে আপনার দেয়া প্রশ্ন থাকবে। খুব কম সময়ে যে কোন ডিভাইসের জন্য ব্যান্ড ভ্যালু ঠিক রেখে চমৎকার সার্ভে করা সম্ভব। ফ্রি তেই আপনি যত বেশি তত সার্ভে করতে পারেন তবে প্রিমিয়াম ভার্শনও রয়েছে।

 

০৫. POP

যত প্রযুক্তিই আসুক না কেন অনেক ডিজাইনারই শুরুটা করেন পেপার এবং কলম দিয়ে। আপনি যদি পেপারে প্রোটোটাইপ করতে পছন্দ করেন তাহলে এই POP (Prototyping On Paper) টুলটি আপনার জন্যই।

পেপারে ওয়্যারফ্রেম ড্র করার পর আপনার ফোন দিয়ে ছবি তুলুন তারপর এই পপ অ্যাপের মাধ্যমে সবগুলো স্ন্যাপ লিংক করে দিতে পারবেন ট্রানজিসন এবং গেসচার সহ। এই মকআপ ফাইলটি ক্লায়েন্ট এর কাছে সিকিউর পদ্ধতিতে শেয়ার করতে পারবেন। সিম্পল এই টুলস টি ব্রেইনস্টর্মিং এর জন্য চমৎকার কাজে দেয়।

 

০৬. User Testing

UX ফ্রিল্যান্সাররা সার্ভে টুলের চেয়েও বেশি কিছু চান যেখানে ইউজার টেস্টও হয়ে যাবে। এই চমৎকার টুলটি ইউজারদের এক্টিভিটি ওয়েব সাইট বা অ্যাপের মাধ্যমে রেকর্ড করে রাখে যা অবসর সময়ে অ্যানালাইসিস করা যায়। অর্থাৎ এই টুল দিয়ে জানতে পারবেন আপনার সাইটের ইউজাররা কিভাবে ইন্ট্রাক্ট করছে।

খুব অল্প সময়ের মধ্যে কাস্টমারদের ফিডব্যাক পেতে এই টুলের জুড়ি নেই।

০৭. Lookback

 

চ্যাটবটস এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্সের এই যুগে আমাদের ডিভাইসগুলো এখন হয়ে উঠছে আরো বেশি স্মার্ট। তো লুকব্যাক নামের এই চমৎকার টুলের মাধ্যমে আপনার ভিজিটরদের ইমোশন চেক করতে পারবেন। অর্থাৎ আপনার করা ইউজার ইন্টারফেস ব্যবহার করার সময় ব্যবহারকারীর ইমোশন এবং ব্যবহার অভিজ্ঞতা বুঝতে পারবে এই লুকব্যাক।

এটার মাধ্যমে আপনি ফুল স্ক্রিন রেকর্ড করতে পারবেন এবং রিভার্স ক্যামেরা ব্যবহার করে ইউজারের ফেসিয়াল এক্সপ্রেশনও রেকর্ড করতে পারবেন। এই ফলাফল অ্যানালাইসিস করে অনেক ইম্প্রুভ করা সম্ভব।

০৮. Mixpanel

এই মিক্সপ্যানেল টুলটি আপনার প্রডাক্টের ফানেল ট্র্যাক করতে পারবে অর্থাৎ প্রত্যেক ব্যবহারকারীর প্রডাক্ট ব্যবহার করা, কন্সিডারেশন সহ ফানেল পাইপলাইনের সব কিছুই ট্র্যাক করতে সক্ষম। সব ধরণের ডেটাই মিক্সপ্যানেল কালেক্ট করবে তবে আপনাকে শুধুমাত্র মেট্রিক্স অ্যানালাইসিস করার সময় পে করতে হবে। সব মিলিয়ে ফ্রি তেও অনেক কাজে আসবে আর এডভান্স ব্যবহারের জন্য প্রতি মাসে ৯৯ ডলারের সাবস্ক্রিপশন কিনতে হবে।

 

০৯. Balsamiq

কুইক ওয়্যারফ্রেম এবং মকয়াপ ফাইল একত্র করার জন্য এই টুলটি হতে পারে অন্যতম। ট্রেডিশনাল UX ডিজাইনারে কাজগুলো হোয়াইট বোর্ড ওয়্যারফ্রেম হিসেবেই দেখাবে তবে সেটা ডিজিটালি। এই চমৎকার ড্রাগ এবং ড্রপ ইন্টারফেসে সবকিছুই খুব ফাস্ট কাজ করে।

 

১০. Justinmind

এডভান্স ওয়্যারফ্রেমিং যারা চান এবং সাথে সাথে ইন্ট্রাকটিভ প্রোটোটাইপিং ও করতে চান তাদের জন্য এই অসাধারণ জাস্টইন মাইন্ড অ্যাপটি। মাল্টি ডিভাইস সিমুলেশন সহ প্রোটোটাইপ ট্র্যাকও করতে পারবে এই টুলস। প্রোটোটাইপ জিরো থেকে তৈরি করা সম্ভব এবং প্রি বেকড UI এলিমেন্ট ড্রাগ অ্যান্ড ড্রপ করে ডিজাইন করা যায়।
এই টুলটি আপনাকে দিবে ইন্টারফেস ডিজাইন, স্কেচ এবং ফটোশপ ইন্ট্রিগেট করার অপার স্বাধীনতা। কন্ডিশনাল লজিক এবং ইন্ট্রাকশন সাথে যুক্ত করা যায়। বড় ধরণের ক্লায়েন্ট হ্যান্ডেল করার জন্য রয়েছে টিমওয়ার্ক ফিচার যেখানে ক্লায়েন্ট নিজেই নিজেদের চাহিদামত ফিচার যুক্ত করতে পারবে এবং পরিবর্তনের হিস্টরি ট্র্যাক করতে পারবে।
এই ছিল UX ডিজাইনারদের জন্য টুলস কালেকশন। আপনাদের যদি কাজে আসে অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন।  (ক্রিয়েটিভ ব্লগ অবলম্ভনে)

সকল মন্তব্য (2)

Foysol

১৪ জানুয়ারি, ২০১৮ at১০:৪৬:৪২ অপরাহ্ণ, Reply

Oshonko DhonnoBad

মন্তব্য করুন

ফেইসবুক দিয়ে মন্তব্য